দেওয়ানগঞ্জে প্রেমীককে বেঁধে রেখে প্রেমিকাকে দুই বখাটের রাতভর পালাক্রমে ধর্ষণ

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা ডাংধরা ইউনিয়নের জোয়ানের চর সরকার পাড়া এলাকায় গত ৫ অক্টোবর সোমবার রাতে পালাক্রমে ধর্ষিত হয় নবম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন-২০০০ এর ৯ (১) ধারায় ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড মন্ত্রিপরিষদ সভায় অনুমোদিত হলেও তবুও  ধর্ষণ থেকে রেহাই পেলোনা নবম শ্রেণির এই শিক্ষার্থী।

- Advertisement -

ওই শিক্ষার্থীর বাবা এবং চাচাসহ কয়েকজন দেওয়ানগঞ্জ নিউজকে বলেন, সোমবার দিবাগত রাত আনুমানিক ১১ টার সময় প্রেমের টানে সানন্দবাড়ী সিলেট পাড়া গ্রামের আব্দুল  কুদ্দুসের ছেলে দুই সন্তানের বাবা মমিনুল ইসলামের সঙ্গে রাতে পালিয়ে বিয়ে করতে যাওয়ার সময় জোয়ানের চর গ্রামের সাইদুর রহমানের ছেলে আলমগীর (২২) এবং মৃত্যু সাহাব উদ্দিনের ছেলে মমিনুল (২৩) টোকমাথা বাজারের কাছে তাদেরকে দেখতে পেয়ে ফুসলাইয়া আলমগীরের একা বাড়িতে নিয়ে গিয়ে জোরপূর্বক রাত ৩ টা পর্যন্ত ওই ছাত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষন করে প্রেমীক মমিনুলকে বেঁধে রেখে। ধর্ষণ শেষে  তাদের দুইজনকে ছেড়ে দেয়, পরে প্রেমিক মুমিনুল মেয়েটিকে তার বাড়ীতে রেখে পালিয়ে যায়। মেয়েটি বাড়ীতে গিয়ে তার মাকে বিষয়টি জানালে পরদিন মেয়েটির বাবা স্থানীয় মাতব্বরদের জানায়। এ নিয়ে এলাকায় একটি সালিশ করে প্রেমিক মমিনুলের কাছ থেকে ত্রিশ হাজার টাকা জরিমানা নিয়ে তাকে ছেড়ে দেয়। পরের দিন ০৭ অক্টোবর (বুধবার) জামালপুর কোর্টের মাধ্যমে ডাক্তারি পরিক্ষা শেষে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে অভিযুক্ত দুই ধর্ষককে আসামি করে এবং প্রেমিক মমিনুলকে সাক্ষী করে মামলা দায়ের করে ধর্ষিত ওই ছাত্রী।

এবিষয়ে উপযুক্ত বিচারের দাবী জানিয়েছেন ভক্তভোগী র পরিবার। অভিযুক্ত আসামির বাড়ীতে গেলে  পলাতক  আছে বলে জানাগেছে।

আপনার মতামত দিন
- Advertisement -