দেওয়ানগঞ্জ পৌর এলাকায় চোরের উপদ্রবে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভা, কলেজ রোড, উপজেলা কমপ্লেক্স এলাকা, চিকাজানী চৌরাস্তা, মাস্টার পাড়া ইত্যাদি এলাকায় চুরি আশংকাজনক ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রায় প্রতিরাতেই পৌর শহরসহ প্রত্যন্ত এলাকায় বাসাবাড়িতে হানা দিয়ে সংঘবদ্ধ চোরচক্র গৃহস্তের নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার ও মোবাইল ফোন ইত্যাদি মূল্যবান মালামাল চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে। বিগত ১মাসে অন্তত: ২০-৩০টি বাড়িতে চুরি সংঘঠিত হওয়ায় এলাকাবাসীর মধ্যে আতংক দেখা দিয়েছে। চুরি ঠেকাতে আতংকিত লোকজন রাত জেগে পাহারা বসালেও রোধ হচ্ছে না চুরি।

গত ৩ জুলাই কলেজ রোডে অবস্থিত আজিজা রোজ বাড কলেজিয়েট স্কুলে চুরির ঘটনা ঘটে। সি,সি ক্যামেরা ফুটেজের সূত্র ধরে ২ চোরকে ধরা হয়।

- Advertisement -

চোর ২ জন হলো: পৌর এলাকার ৪নং ওয়ার্ড কৌবত্য পাড়া নিবাসী কাঠ মিস্ত্রী যিতেন এর ছেলে নয়ন (২০), এবং ৫নং ওয়ার্ড ডালবাড়ি নিবাসী হোটেল শ্রমিক কালুর ছেলে শামিম (২১)।
নয়ন এর আগেও একাধিক বার চুরির ঘটনায় জেল খেটেছে, কিন্তু জেল থেকে জামিনে বের হবার সংগে সংগেই চুরির সাথে প্রতিবারই জড়িয়ে পড়ে। এক শ্রেণির অসাধু ব্যাবসায়ি এইসব চুরির মাল ক্রয় করে এই চোরদের উৎসাহ প্রদান করে।

Dewangonj
সি সি টিভি ফুটেজে চুর শনাক্ত করা হচ্ছে। ছবি: দেওয়ানগঞ্জ নিউজ।

দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো:আক্কাস আলী দেওয়ানগঞ্জ নিউজকে বলেন, বিগত মার্চ মাস হতে উপজেলা শহর ও আশ-পাশের গ্রাম মহল্লায় ছিচকে চুরির ঘটনা ঘটে চলছে। সংঘবদ্ধ চোরচক্র অভিনব কায়দায় বাসাবাড়ির গ্রিল কেটে, দরজা খুলে ঘুমন্ত গৃহস্তের বাসাবাড়িতে হানা দিয়ে নগদ টাকা, মোবাইল ফোন ও স্বর্ণালংকার চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে।

বিগত এক মাসে ১,২,৩,৪নং ওয়ার্ডের অন্তত: ১৫/২০টি বাড়িতে চুরি সংঘঠিত হয়েছে। প্রায় প্রতিরাতে বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় চোরের উৎপাত দেখা দেয়ায় সাধারন মানুষের মাঝে চুরির আতংক দেখা দিয়েছে।

পুলিশি টহল আর গ্রামবাসীদের রাত জেগে পাহারায় ও রোধ হচ্ছে না চুরি। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও পুলিশ প্রশাসনের সতর্ক পাহারা এড়িয়ে প্রায় প্রতিরাতেই কোন না কোন বাসাবাড়িতে চুরি ঘটনা ঘটেই চলছে। এতে এলাকাবাসীর মাঝে বিরাজ করছে চুরির আতংক।

পৌরসভার ৪,৫,৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সেলিনা আকতার দেওয়ানগঞ্জ নিউজকে বলেন, চোরের উপদ্রুব ঘটনায় জনপ্রতিনিধি ও পুলিশ প্রশাসন এখন রীতিমত বিব্রত। চুরি বন্ধে পৌরসভার উদ্যোগে বিভিন্ন এলাকায় বেশ কয়েকটি সভা করে এলাকাবাসীদের সতর্ক করা হয়েছে। থানা পুলিশের ট্রহল বৃদ্ধি করে রাতভর পাহারার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এদিকে দিনে রাতে প্রতিনিয়ত চুরির ঘটনা ঘটতে থাকায় গ্রামবাসির মধ্যে চুরির আতংক দেখা দিয়েছে। এ ব্যপারে দেওয়ানগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। জানাশোনা চোরের দল মালিকের অনুপস্থিতি নিশ্চিত হয়েই দিনের বেলায় চুরি সংঘঠিত করেছে বলে এলাকাবাসীদের ধারনা।

দেওয়ানগঞ্জ মডেল থানার উপপরিদর্শক আব্দুল আজিজ দেওয়ানগঞ্জ নিউজকে বলেন, এলাকাবাসীদের সহযোগিতা ছাড়া পুলিশের একার পক্ষে চুরি বন্ধ করা অসম্ভব। তিনি বলেন, প্রায় প্রতিরাতে চুরির খবর শুনা গেলেও বেশীর ভাগই লিখিত অভিযোগ কিংবা মামলা দিতে অনীহা প্রকাশ করছে। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ না পাওয়ায় পুলিশ কারো বিরুদ্ধে আইনী পদক্ষেপ নিতে পারছে না।

তিনি আরও বলেন, পুলিশ সর্বদা তৎপর আছে এবং বেশ কয়েকটি ট্রহল টিম দেয়া হয়েছে। এলাকাবাসীদের পাহারা আর পুলিশের পেট্রোল জোড়দারে চুরির ঘটনা ক্রমেই হ্রাস পাবে।

আপনার মতামত দিন
- Advertisement -